ফ্যাশন ডিজাইনে অনার্স কোর্সে ক্যারিয়ার

বর্তমান চাকরির বাজারে ক্যারিয়ার বিবেচনায় গুরুত্ব পাচ্ছে কর্মমুখি শিক্ষা। কর্মমুখি বিষয়ে চার বছর মেয়াদি অনার্স কোর্স সম্পন্নের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা পাচ্ছেন ক্যারিয়ার গড়ার সুযোগ। এসব বিষয়ের মধ্যে অন্যতম ফ্যাশন ডিজাইন, অ্যাপারেল মার্চেন্ডাইজিং, ইন্টেরিয়র ডিজাইন ও গ্রাফিক্স ডিজাইন। অনেকেই এসব বিষয়ে কোর্স করে উজ্জ্বল ক্যারিয়ার গড়েছেন।

এই শিল্পের জন্য দক্ষ জনবল তৈরি, পোশাক শিল্পের মানোন্নয়নের মাধ্যমে বিশ্ব বাজারের প্রতিযোগিতায় নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করতে, সেইসঙ্গে বিদেশি দক্ষ জনবলের অভাব নিরসনে নিজ দেশের মানুষকে শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ দিয়ে দক্ষ ও যোগ্যতা সম্পন্ন মানব সম্পদ গড়ার প্রত্যয় নিয়ে গার্মেন্টস মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ ১৯৯৯ সালে বিজিএমইএ ইনস্টিটিউট অব ফ্যাশন অ্যান্ড টেকনোলজি (বিআইএফটি) প্রতিষ্ঠা করে। প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশের জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাপিলিয়েশন পায় ২০০১ সালে। এরপর থেকেই শুরু হয় মহারথের মহাযাত্রা। পরবর্তীতে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আইন ২০১০-এর অধীনে ২০১২ সালে বিআইএফটিকে  বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তর করা হয়। যার নাম বিজিএমইএ ইউনিভার্সিটি অব ফ্যাশন টেকনোলজি (বিইউএফটি)।

রাজধানীর মডেল টাউন উত্তরায় অবস্থিত এই প্রতিষ্ঠানটি প্রতিষ্ঠার পর আর পেছনে তাকাতে হয়নি, প্রতিদিনই শিক্ষার্থীর ভিড় বাড়ছে। এর মূল কারণ হচ্ছে কর্মমুখী শিক্ষা। এখানকার শিক্ষার্থীরা পরীক্ষা পাসের আগেই প্রায় ৯০ ভাগ চাকরি নামের সোনার হরিণটির সন্ধান পেয়ে যায়। কারণ এই শিল্পে ছিল দক্ষ ও অভিজ্ঞতা সম্পন্ন জনবলের অভাব ।

এই প্রতিষ্ঠানটি একুশ শতকের চ্যালেঞ্জকে মোকাবিলা করার জন্য বহুবিধ দক্ষতা অর্জনে ও আধুনিক সভ্যতার সঙ্গে তাল মিলিয়ে এখানকার প্রতিটি শিক্ষার্থীকে গড়ে তুলছে। বর্তমান সময়ে এই প্রতিষ্ঠানটি দেশের গুণীজন ও শিক্ষার্থীদের কাছে স্বমহিয়ান হয়ে উঠেছে। শুধু তাই নয়, এই প্রতিষ্ঠানটি মানুষের ভালবাসা ও সন্তুষ্টিকে ভর করে ক্রমশ সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। প্রতিষ্ঠানটি বিশ্বায়ন তথা যুগের নতুনত্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বিভিন্ন পদক্ষেপ হাতে নিয়েছে। নতুন নতুন কর্মমুখী শিক্ষা কার্যক্রম গ্রহণ করে শিক্ষিত বেকারত্ব ঘোচাতে এবং উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ গড়ার দ্বার উন্মোচন করতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে আসছে। বাংলাদেশে যে হারে বেকারত্ব ও শিক্ষিত বেকারত্বের সংখ্যা বাড়ছে তাতে নিজেদেরকে কর্মমুখী শিক্ষা কিংবা যুগোপযোগী শিক্ষায় শিক্ষিত করা উচিত। প্রচলিত গতানুগতিক ধারায় শিক্ষিত হলে অধিকাংশ ক্ষেত্রে জব মার্কেটে আসতে কষ্ট হয় এবং তীব্র প্রতিযোগিতার মুখোমুখি হতে হয়। এই বিষয়টাকে গুরুত্ব দিয়ে প্রতিষ্ঠা করা হয় বিইউএফটি।

কোর্স ও বিভাগ

প্রতিষ্ঠার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যগুলোর ফলপ্রসূ বাস্তবায়নের জন্য বিইউএফটিতে রয়েছে যুগোপযোগী বৈশ্বিক চাহিদা সম্পন্ন ফ্যাশন প্রোগ্রাম:

১.বিএসসি ইন ফ্যাশন ডিজাইন অ্যান্ড টেকনোলজি (এফডিটি)।

২.ব্যাচেলর অফ ফ্যাশন ডিজাইন ( বিএফডি)

ভর্তি বিষয়ক সকল তথ্য পাবেন বিইউএফটি ওয়েবসাইট http://buft.edu.bd/about_us1/admission-test-advertisement-2/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll Up