বিশ্বের সবচেয়ে বড় গাড়িতে যুক্ত হলো সুইমিংপুল

পুনরায় সংস্কার করা হয়েছে বিশ্বের সর্ববৃহৎ গাড়ি ‘দ্য আমেরিকান ড্রিম’। যার মাধ্যমে পূর্বের রেকর্ড ভেঙে দেওয়া হয়েছে। অর্থাৎ নিজের রেকর্ড নিজেই ভেঙেছে। শুধু রেকর্ড ভাঙা নয় জায়গা করে নিয়েছে গিনেস ওয়ার্ল্ডেও।

বিশ্বের সবচেয়ে বড় গাড়ির নাম ‘দ্য আমেরিকান ড্রিম’। সম্প্রতি গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড তাদের সামাজিক মাধ্যমে এর ছবি শেয়ার করে জানিয়েছে, সাধারণ একটি গাড়ির দৈর্ঘ্য হয়ে থাকে ১২ থেকে ১৬ ফুট। কিন্তু এর দৈর্ঘ্য ৩০.৫৪ মিটার বা ১০০ ফুট।

গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডের তথ্যানুযায়ী ১৯৮৬ সালে এই গাড়িটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ায় নির্মাণ করা হয়। ওই সময় এর দৈর্ঘ্য ৬০ ফুট এবং ২৬টি চাকা সংযুক্ত ছিল। ইঞ্জিন ছিল ভি-৮। পরবর্তীতে এটিকে আবারও সংস্কার করা হয়। এটি এতটা লম্বা যে ভারতের ১৫ ফুটের ছয়টি হোন্ডা সিটি স্যান্ডাসের মধ্য পার্ক করে রাখা যাবে। তারপরও কিছু অংশ ফাঁকা থাকবে। গাড়ি উভয় দিক থেকে চালানোর সুবিধা রয়েছে। এটি দুটি অংশে বিভক্ত। মাঝ খান থেকে গাড়িটি জোড়া দেওয়া।

যাত্রীদের ভ্রমণকে আনন্দময় করতে গাড়িটিতে যুক্ত করা হয়েছে ভিআইপি সব সুবিধা। রয়েছে বড় ওয়াটার বেড, সুইমিং পুল, বাথটাব, জ্যাকুজি, মিনি গলফ খেলার সুবিধা এবং একটি হ্যালি প্যাড।

এ ছাড়া গাড়িটিতে রয়েছে ফ্রিজ সুবিধা, টেলিফোন এবং টেলিভিশন দেখার সুবিধা। গাড়িটিতে একসঙ্গে ৭৫ জন চলাচল করতে পারে। তবে এটির রক্ষণাবেক্ষণ ছিল অনেক ব্যয়বহুল। এ ছাড়া প্যার্কিংয়ের জন্য অনেক অর্থ পরিশোধ করতে হতো। পরবর্তীতে এটি নষ্ট হয়ে গেলে আকর্ষণ হারায়। কিন্তু গাড়িটিকে আবারও সংস্কার করার পর তা কিনে নিয়েছে ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ই-বে।

‘দ্য আমেরিকান ড্রিম’ সংস্কার করতে ব্যয় হয় ২ লাখ ৫০ হাজার মার্কিন ডলার। আর এতে সময় লাগে তিন বছর। তবে এটি আর রাস্তায় চলবে না। জাদুঘরে সংরক্ষণ করে রাখা হবে।

সূত্র: গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস, এনডিটিভি

Leave a Reply

Your email address will not be published.